December 6, 2021, 2:35 pm


মতলবে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করো বর্তমান এমপি ও সাবেক এমপি গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, আহত ১০

মতলব প্রতিনিধি:

চাঁদপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি মো. নুরুল আমিন রুহুল ও সাবেক ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার কর্মীদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে। এতে অন্তত ৩০টি ব্যক্তিগত গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। আহত হয়েছেন  কমপক্ষে ২০ জন নেতা-কর্মী।

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আজ শনিবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলার মতলব সেতুর টোল প্লাজা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা যায়—চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বেলা ১১টায় জেলা স্টেডিয়ামে তৃণমূল পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের বর্ধিত সভার আয়োজন করা হয়। সভায় যোগ দিতে সকাল আটটা থেকে এমপি নুরুল আমিন রুহুলের অনুসারীরা মতলব সেতুর টোল প্লাজা এলাকায় জড়ো হতে থাকেন। গতকাল শুক্রবার বিকেলে ওই এলাকায় তাঁরা একটি মঞ্চও তৈরি করে।

আজ সকাল সাড়ে নয়টায় মঞ্চের পাশ দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জেলা শহরে যাওয়ার সময় এমপি রুহুলের অনুসারীরা তাঁকে অভিনন্দন জানায়। ওই মঞ্চে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বক্তব্য রাখেন। এ সময় শিক্ষা মন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম সহ কেন্দ্রীয় নেতা কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

পরে সেখান থেকে জেলা শহরের উদ্দেশে রওনা দেন সাংসদ রুহুল। সকাল পৌনে ১০টায় সেখানে মায়া ও রুহুলের লোকেরা মিছিল বের করে। একপর্যায়ে উভয় পক্ষের নেতা-কর্মী ও সমর্থকেরা লাঠিসোঁটা এবং দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এতে গোটা এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষ চলাকালে অন্তত ৩০টি ব্যক্তিগত গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। ভাঙা হয় মঞ্চ। আহত হয়েছেন ১০ জন।

আহতদের মধ্যে মতলব উত্তর উপজেলার মোহনপুর এলাকার শরিফ মিয়া, আজমত উল্লাহ ও মতলব দক্ষিণ উপজেলার বাইশপুর এলাকার মো. নাঈমকে মতলব দক্ষিণ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। বাকিদেরও বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে তাঁদের পরিচয় জানা যায়নি।

গাড়ি ভাঙচুর করা হয়গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। ছবি: আজকের পত্রিকা
খবর পেয়ে চাঁদপুরের সহকারী পুলিশ সুপার (মতলব সার্কেল) ইয়াসির আরাফাত ও মতলব দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহিউদ্দিন মিয়া পুলিশ সদস্যদের নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। উভয় পক্ষের কর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে তাঁরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

সংসদ সদস্য মো. নুরুল আমিন রুহুলের ব্যক্তিগত সহকারী (পিএ) লিয়াকত আলী ও মতলব উত্তর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক মহসিন মিয়া মানিক অভিযোগ করেন, এলাকায় ত্রাস ছড়ানো এবং রাজনৈতিক আধিপত্য বিস্তারের লক্ষ্যেই মায়ার লোকেরা তাঁদের ওপর পরিকল্পিতভাবে এই হামলা চালিয়েছেন। এতে তাঁদের পক্ষের ১০ কর্মী আহত হয়েছেন। তাঁদের লোকজনের ৩০টি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

এ বিষয়ে জানার জন্য সাবেক মন্ত্রী ও চাঁদপুর-২ আসনের সাবেক সাংসদ মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়াকে ফোন করা হলেও যোগাযোগ করা যায়নি। তবে তাঁর অনুগত হিসেবে পরিচিত ছাত্রলীগ নেতা সেলিম রেজাসহ বেশ কয়েকজন কর্মী দাবি করেন, তাঁদের ওপর সংসদ সদস্য রুহুলের লোকেরা এ হামলা চালিয়েছেন। ঘটনাটির জন্য তাঁরা দায়ী নন।

মতলব দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহিউদ্দিন মিয়া বলেন, ঘটনাস্থলে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি শান্ত ও সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো পক্ষই মামলা করেনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


সংবাদ পড়তে লাইক দিন ফেসবুক পেজে