September 17, 2021, 8:23 pm


কাল খুলছে স্কুল, শিক্ষার্থীদের মাঝে আনন্দ-উল্লাস

মো. মহিউদ্দিন আল আজাদ:

আবার শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হচ্ছে সারা দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামীকাল (১২ সেপ্টেম্বর) খুলছে দেশের স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা। ৫৪৪ দিন পর শিক্ষার্থীরা ফিরছে ক্লাসে। প্রাথমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের এসব প্রতিষ্ঠানে প্রায় সোয়া তিন কোটি ছাত্রছাত্রী আছে। সরাসরি পাঠদানের লক্ষ্যে বেশিরভাগ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ইতোমধ্যে প্রস্তুত করা হয়েছে। তবে বন্যা কবলিত এলাকা এবং প্রত্যন্ত অঞ্চলের অনেক প্রতিষ্ঠান এখনও পুরোপুরি প্রস্তুত হয়নি।

প্রতিষ্ঠান খোলার ক্ষেত্রে করোনাসংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) নির্দেশিকা অনুসরণ করা হচ্ছে। পাঠদান চলাকালে স্বাস্থ্য সুরক্ষাসংক্রান্ত নিয়মাবলি কঠোরভাবে বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। পাশাপাশি দুই স্তরে তা মনিটরিং করা হবে। প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকেই দৈনিক আসবে আলাদা দুটি মনিটরিং প্রতিবেদন। এছাড়া শিক্ষার সঙ্গে সম্পৃক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের মধ্যে অন্তত ৮০ শতাংশকে অন্তত এক ডোজ টিকা নিশ্চিতের উদ্যোগ নেওয়া হয়। শিক্ষা কার্যক্রম পুনরায় শুরুর সার্বিক কাজ তদারকির জন্য ছুটির দিনেও আজ শিক্ষা মন্ত্রণালয় খোলা রাখা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশে প্রায় ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আছে। এগুলো অভিন্ন ক্লাস রুটিনে চলবে। প্রায় অর্ধলক্ষ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আছে। এগুলো অবশ্য নিজ নিজ রুটিন অনুসরণ করবে। এসব প্রতিষ্ঠান পরিচালনার জন্য আলাদাভাবে দফায় দফায় নির্দেশিকা পাঠিয়েছে শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। তাতে শিক্ষার্থী, প্রতিষ্ঠান প্রধান, সাধারণ শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটিসহ সংশ্লিষ্ট ৯ স্তরের জন্য আলাদা করণীয় উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার সিদ্ধান্ত অনুাযায়ী, ১০টি মূলনীতি অনুসরণ করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো পরিচালনা করতে বলা হয়েছে। আর দৈনন্দিন লেখাপড়া ও মূল্যায়নে অনুসরণ করা হবে ৮টি নীতি।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন বলেন, সরকারের কাছে মূল অগ্রাধিকার ছাত্রছাত্রীদের নিরাপত্তা। সেটিকে সামনে রেখে স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় পুনরায় লেখাপড়া শুরুর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। করোনাসংক্রমণ থেকে সুরক্ষায় নির্দেশিত পন্থায় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন, বসানোর ক্ষেত্রে শারীরিক দূরত্ব ইত্যাদি কঠোরভাবে অনুসরণ করা হবে। এ সংক্রান্ত বিভিন্ন নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। ৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রস্তুত করতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি নির্দেশনা অনুসৃত হচ্ছে কিনা তা নিশ্চিতে শিক্ষার মাঠপ্রশাসন কাজ করছে। কেন্দ্রীয়ভাবেও সবকিছু তদারকি করা হচ্ছে। আমরা আশা করছি, সবাই প্রস্তুত। এরপরও কাল (আজ) সবশেষ পরিদর্শন করবেন মাঠপর্যায়ের শিক্ষা প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

৩ সেপ্টেম্বর শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার ঘোষণা দেন। ওই ঘোষণায় ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে এক প্রকার হিল্লোল বয়ে গেছে। প্রায় সব শিক্ষার্থী অপেক্ষা করছে কখন স্কুলে যাবে। পাশাপাশি গত কয়েকদিন ধরে দেখা গেছে তাদের প্রস্তুতি। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার বাজার ও বিপণিবিতানগুলোতে শিক্ষাসামগ্রী বিশেষ করে জুতা-মোজা, ব্যাগ এবং স্কুল ড্রেস কিনতে দেখা গেছে। অন্যদিকে শিক্ষার্থীদের স্বাগত জানাতে শিক্ষকরাও অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন। শিক্ষকরা এ কদিন ব্যস্ত ছিলেন পুনরায় শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর প্রস্তুতি নিয়ে। একদিকে তারা পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম চালান। আরেকদিকে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক রুটিন তৈরির পাশাপাশি ক্লাসরুমে শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করে বসানো, হাত ধোয়া, অসুস্থ হলে বিশেষ কক্ষে পরিচর্যা ইত্যাদি প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

আগামীকাল স্কুল খোলার পূর্বেই বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পরিচ্ছনতার কাজ এগিয়ে চলছে। হাজীগঞ্জে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচ্ছন্নতার সব দিকই তদারকী করেন হাজীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


সংবাদ পড়তে লাইক দিন ফেসবুক পেজে