Monday , 17 June 2024
Hajigonj নৌকার সর্মনে

হাজীগঞ্জে বড়কুল পূর্ব-পশ্চিম-বাকিলা-সোনাইমুঁড়ি-রাজারগাঁও নৌকা প্রতীকের ব্যাপক গণসংযোগ

হাজীগঞ্জের বড়কুল পূর্ব ও বড়কুল পশ্চিম, বাকিলা ও রাজাারগাঁও ইউনিয়নে একদিনে নৌকা প্রতীকের ৭টি পথসভা,উঠোন ও গণসংযোগ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকে প্রতিদিনই দিনব্যাপি থেকে অনুষ্ঠিত পথসভাগুলোতে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জনগণনন্দিত সাংসদ মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম।

তিনি বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের নোয়াদ্দা গ্রাম, রায়চোঁ বাজার, মোল্লাডহর গ্রাম ও সোনাইমুঁড়ি গ্রাম এবং বড়কুল পশ্চিম ইউনিয়নের দেবিপুর বাজার, সাদ্রা চৌরাস্তা এবং রামচন্দ্রপুর ভুইয়া একাডেমি মাঠে পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে সোনাইমুঁড়ি ও রামচন্দ্রপুর ভুইয়া একাডেমিতে অনুষ্ঠিত পথসভা জনসভায় রূপ নেয়।

পথসভায় মেজর অব.রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম বলেন,‘ ১৯৯৬ সালে আমি প্রথমবার নৌকা প্রতীক নিয়ে আপনাদের মাঝে এসেছি। আপনারা আমার সম্মান রেখেছেন এবং আমাকে সম্মান দিয়েছেন। এরপর থেকে প্রায় ত্রিশ বছরের রাজনৈতিক পরিচয়। আপনারা আমাকে ভোট দিয়ে চারবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত করেছেন।’

তিনি বলেন, ‘ এ চারবার সংসদ সদস্য থাকাকালীন সময়ে বিশেষ করে ১৫ বছরে হাজীগঞ্জ -শাহরাস্তি উপজেলা ব্যাপক উন্নয়নের মধ্যে প্রায় ৭’শ কিলোমিটার গ্রামীণ সড়ক পাকাকরণ, ডাকাতিয়া নদীর উপর ৮টি সেতু, প্রায় ৭’শ ব্রীজ-কালর্ভাট ও প্রায় ৬’শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবন নির্মাণ এবং শতভাগ বিদ্যুতায়ন সম্পন্ন করেছি।

বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় ছিলেন বলেই এসব উন্নয়ন করতে পেরেছেন উল্লেখ করে মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম বলেন, ‘ আমি ষষ্ঠবারের মতো নৌকা প্রতীক দিয়ে আবারো আপনাদের কাছে এসেছি। আপনারা নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে বাকি কাজ সম্পন্ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির সুযোগ দিন।’

তিনি আরো বলেন, ‘ যেহেতু উন্নয়ন করার মতো আর কোন কাজ বাকি থাকবে না। তাই, আগামিতে বৃদ্ধ বাবা-মা ও তরুণদের জন্য কাজ করবো। এর মধ্যে তরুণ-যুবকদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা, বাবা-মা যাতে দুবেলা পেট ভরে খাবার খেতে পারে এবং চিকিৎসার জন্য কেউ যেন জায়গা-জমি বিক্রি করতে না হয়। সেজন্য আমি সংসদে উপস্থাপন করবো এবং প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে সে দাবি আদায়ের জোর চেষ্টা করবো।’

বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান মজিব, বড়কুল পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম.এ হাসেম হাসু ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি লোটাস মো. দেলোয়ার হোসেনের যৌথ উপস্থপানায় বক্তব্য দেন, আওয়ামী লীগ নেতা খালেদুর রব মিঠু, আলহাজ¦ মো. সেলিম, অধ্যাপক মো. সেলিম, বড়কুল পূর্ব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মো. আহসান হাবিব ও মো. ফয়সাল হোসেন প্রমুখ। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ রোটা. আহসান হাবীব অরুন, বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. আবু তাহের, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা গাজী বিল্লাল হোসেন, হাজী জসিম উদ্দিন, হাটিলা পশ্চিম ইউনিয়ন নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক হুমায়ুন কবির লিটন, উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন রানা, সাধারণ সম্পাদক শুকুর আলম গাজীসহ উপজেলা ও স্ব-স্ব ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মাসুদ ইকবাল, সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক জাকির হোসেন সোহেল, পৌর যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ম-আহবায়ক তাজুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রনেতা ফরিদুল ইসলাম, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি সোহেল আলম বেপারী, সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাব্বিসহ বড়কুল পূর্ব ও পশ্চিম ইউনিয়ন ও সকল ওয়ার্ডের দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকসহ পথসভাগুলোতে কয়েক শতাধিক লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

হাজীগঞ্জের বাকিলা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের ৩টি পথসভা : হাজীগঞ্জের বাকিলা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের ৩টি পথসভা করেছেন। ২৩ ডিসেম্বর দুপুরে রাধাসার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে, বিকালে শ্রীপুর খাঁন বাড়িতে ও সন্ধ্যায় মহেশপুর হাজী বাড়িতে অনুষ্ঠিত এসব পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভাগুলোতে বক্তব্য দেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও চারবারের সংসদ সদস্য মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম।

তিনি বলেন,‘ চারবার সংসদ সদস্য থাকাকালীন সময়ে বিশেষ করে ১৫ বছরে হাজীগঞ্জ ও শাহরাস্তি উপজেলায় ব্যাপক উন্নয়নের মধ্যে প্রায় ৭’শ কিলোমিটার গ্রামীণ সড়ক পাকাকরণ, ডাকাতিয়া নদীর উপর ৮টি সেতু, প্রায় ৭’শ ব্রীজ-কালর্ভাট ও প্রায় ৬’শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবন নির্মাণ এবং শতভাগ বিদ্যুতায়ন সম্পন্ন করেছি।’

তিনি বলেন, ‘ বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় ছিলেন বলেই এসব উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে। আমি ষষ্ঠবারের মতো নৌকা প্রতীক দিয়ে আবারো আপনাদের কাছে এসেছি। দেশ ও জাতীর উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে আপনারা নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে বাকি কাজ সম্পন্ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির সুযোগ দিন। সভাগুলোতে আরো বক্তব্য দেন, জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মো. বিল্লাল হোসেন মজুমদার, সদস্য খালেদুর রব মিঠু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি অধ্যাপক স্বপন কুমার পাল, সাবেক ছাত্রনেতা সত্যব্রত ভদ্র মিঠুন প্রমুখ।

ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের মধ্যে আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এম.এ খালেক, ইউপি সদস্য ইয়াছিন শেখ, আওয়ামী লীগ নেতা জামাল পাটওয়ারী, কামরুজ্জামান মোল্লা, উপজেলা যুবলীগের সদস্য নজরুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রনেতা রকিবুল ইসলাম রাকিব, ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক ইব্রাহিম খান রনি প্রমুখ। রাধাসারে অনুষ্ঠিত পথসভায় সভাপতিত্ব করেন, আবুল বাসার মাষ্টার,শ্রীপুর সভাপতিত্ব করেন বেনজির আহমেদ পাটওয়ারী,মহেশপুর হাজী বাড়িতে সভাপতিত্ব করেন, জাহাঙ্গীর আলম পাটওয়ারী। এসময় জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ রোটা. আহসান হাবীব অরুন,বীরমুক্তিযোদ্ধা মো.আবু তাহের, মফিজুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা গাজী বিল্লাল হোসেন, হাটিলা পশ্চিম ইউনিয়ন নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক হুমায়ুন কবির লিটন, উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন রানা, সাধারণ সম্পাদক শুকুর আলম গাজীসহ উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মাসুদ ইকবাল,সিনিয়র যুগ্ম-আহবায়ক জাকির হোসেন সোহেল, পৌর যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক তাজুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রনেতা ফরিদুল ইসলাম, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি সোহেল আলম বেপারী, সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাব্বিসহ বাকিলা ইউনিয়ন ও সকল ওয়ার্ডের দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকসহ পথসভাগুলোতে কয়েক শতাধিক লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

সোনাইমুঁড়ি গ্রামে অনুষ্ঠিত পথসভা : চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) নির্বাচনি আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও বর্তমান সাংসদ মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম পথসভায় বিশাল মিছিল নিয়ে অংশগ্রহণ করছেনে মো. আহসান হাবিব। বৃহস্পতিবার দুপুরে হাজীগঞ্জর বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের সোনাইমুঁড়ি গ্রামে অনুষ্ঠিত পথসভাটি জনসভায় রূপ নেয়। সভার শুরুতেই আওয়ামী লীগ নেতা মো. আহসান হাবিবের নেতৃত্বে কয়েক শতাধিক নারী ও পুরুষ যোগ দেন। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী আছেন বলেই এতো উন্নয়ন করা সম্ভব হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘নৌকার বিকল্প কিছুই নেই। নৌকা স্বাধীতার প্রতীক, নৌকা উন্নয়নের প্রতীক। এ নৌকা শুধু একটি প্রতিকই নই, এটি বাঙ্গালী জাতির দু:খ-সুখের সাথি। মেজর রফিক বলেন,বাংলাদেশের মানুষ নির্বাচন, গণতন্ত্র ও ভোটের পক্ষে। কোনো চক্রান্তকারী যেন নির্বাচনি পরিবেশ বিনষ্ট করতে না পারে, সেজন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। তারা যত ভোটের বিপক্ষে থাকবে, আমরা ততটাই ভোট বিপ্লব ঘটাব।’

২৬ ডিসেম্বর ২০২৩
এজি

এছাড়াও দেখুন

sGA-1-660x330

হাজীগঞ্জ ফোরামের সভাপতি‘র ঈদ শুভেচ্ছা

ঈদ মোবারক। পবিত্র কোরবানির ঈদ বা ঈদুল আযহা আমাদের মাঝে সমাগত। মধ্যপ্রাচ্য সহ বিশে^র বিভিন্ন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *