Monday , 17 June 2024
hajigonj
হাজীগঞ্জের ইতিহাস-ঐতিহ্যের আইকন হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ

চাঁদপুরের ইতিহাস-ঐতিহ্যে হাজীগঞ্জ উপজেলা

ভৌগোলিকভাবে সড়ক,রেলপথ আর নদী পথে হাজীগঞ্জের গুরুত্ব অপরিসীম। ইতিমধ্যে জেলাতে হাজীগঞ্জ বাণিজ্যিক উপজেলার খ্যাতি অর্জন করেছে। বাণিজ্যের সাথে সাথে ভৌগোলিক কারণে হাজীগঞ্জ উপজেলায় জেলার অন্য সকল উপজেলা থেকে যোগাযোগ অনেক উন্নত বলে দাবি করেন হাজীগঞ্জের আম জনতা। প্রায় পৌনে ৪ লাখ বিশাল জনগোষ্ঠীর মধ্যে শিক্ষিতের হার ৬০ % (২০১১ সালের আদম শুমারি অনুযায়ী)।

উপজেলার দক্ষিণে লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলা, দক্ষিণ-পশ্চিমে ফরিদগঞ্জ আর চাঁদপুর সদর, পূর্ব-দক্ষিণ ও পূর্বে শাহরাস্তি উপজেলা, উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমে মতলব দক্ষিণ উপজেলা, উত্তর ও উত্তর পূর্বে কচুয়া উপজেলার সীমানা দিয়ে হাজীগঞ্জ উপজেলা পরিবেষ্টিত। জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে রয়েছেন-চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) নিয়ে জাতীয় সংসদের আসন নং ২৬৪। স্থানীয় সংসদ সদস্য মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম ছিলেন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, ছিলেন যুদ্ধকালীন সেক্টরের ১নং সেক্টর কমান্ডার। ৫ বারের নির্বাচিত সাংসদ তিনি।

হাজীগঞ্জে ধড্ডা মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী ডিগ্রি কলেজের একাডেমিক ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর- ৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) আসনের সাংসদ মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি। জন্মস্থান শাহরাস্তি উপজেলার নাওড়া গ্রামে। হাজীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গাজী মাঈনুদ্দিন। ২য় বারের মতো নির্বাচিত হাজীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আ.স.ম. মাহবুব উল আলম লিপন এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাশেদুল ইসলাম। সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে ব্যাংক রয়েছে ২৩ টি।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ছাড়া বেসরকারি হাসপাতাল আর ডায়াগণস্টিক সেন্টার রয়েছে ৩০টি। নতুন ভাবে যুক্ত হলো অত্যাধূনিক মডেল হসপিটাল। যার অধিকাংশের চিকিৎসার মান বরাবর ভালো অবস্থানে রয়েছে।

ইতিহাস-ঐতিহ্যে : উল্লেখযোগ্য স্থাপনার মধ্যে রয়েছে ঐতিহাসিক হাজীগঞ্জ বড় মসজিদ, আলীগঞ্জস্থ হজরত মাদ্দাহ খাঁ (র.) মাজার ও মসজিদ কমপ্লেক্স, প্রায় ৪শ’ বছরের পুরানো অলিপুরের শাহ সূজা মসজিদ ও বাদশাহ আলমগীরী মসজিদ. অলিপুরে ৪ অলির মাজার, নাসিরকোর্টে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের সমাধিস্থল ও উপজেলা পরিষদের সামনের পুকুরে বিজয় স্তম্ভ।

হাজীগঞ্জ বাজারের বড় বড় মার্কেট ছাড়াও রয়েছে মান সম্মত খাবার হোটেল গাউছিয়া হাইওয়ে রেস্টুরেন্ট এন্ড চাইনিজ, নারগিস ফুড প্যাভিলিয়ন, বসুন্ধরা চাইনিজ, নিউ তৃপ্তি হোটেল, হোটেল রাজ, হোটেল প্রিন্স, আল মদিনা হোটেল এন্ড চাইনিজ মিলিয়ে প্রায় ৫০টি খাবার হোটেল, ফুড লাভারর্স , স্বপ্ন, ওয়েলকাম, চাঁদের হাট ও প্রিন্স বাজার সুপার সপ। পুরানো স্থাপনার মধ্যে রয়েছে বলাখাল চৌধুরী বাড়ি, বড়কুলের জমিদার বাড়ি, বাকিলা জমিদার বাড়ি।

গুরুত্বপূর্ণ স্থানের মধ্যে রয়েছে ধেররা আবেদীয়া মুজাদ্দেদীয়া দরবার শরীফ, দেশে আগাম ঈদের প্রবক্তা সাদ্রা দরবার শরীফ, হাটিলা ইউনিয়নের লাউকরা গ্রামে ১৯৭১ সালের সবচে’ বড় যুদ্ধস্থল, চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ১-এর সদর দপ্তর,প্রাইমারি টিচার্স ট্রেনিং ইনিস্টিটিউট, পুলিশ সার্কেল সদর দপ্তর, বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের শহীদ সরণী, ধেররা ও বেলচোঁ বাজারে জেলার সেরা মাছের আড়ত, কেন্দ্রিয় শহীদ মিনার,বাকিলা বাজারস্থ বিসমিল্লাহ কফি হাউজ, মনিহারের গফুর হাজীর রাস্তা,বাকিলা ত্রি-মোহনা থিম পার্ক,কাঁঠালী শিশু পার্ক, নদী বাড়ি ক্যাফে,ডাকাতিয়ার ওপর নির্মিত দৃষ্টিনন্দন বলাখাল-নাটেহরা সেতৃ,হাজীগঞ্জ সেতু, টোরাগড়-বড়কুল সেতু যা নির্মাণাধীন ও মোহাম্মদপুর স্টীল সেতু। উপজেলার অফিস পাড়া খ্যাত আলীগঞ্জে সরকারের প্রশাসনিক ২৭ কর্মকর্তার কার্যালয় ছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন বীমা, এনজিওসহ বিভিন্ন দপ্তর ।

হাজীগঞ্জে জেলা পরিষদের ডাকবাংলো রয়েছে ১টি, ফায়ার সার্ভিস স্টেশন রয়েছে ১টি, পৌর বাস টার্মিনাল রয়েছে ১টি, রেল স্টেশন রয়েছে ২টি। যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে রয়েছে ঢাকাগামী বিআরটিসি বাস, আল আরাফাহ, পদ্মাসহ শতাধিক পরিবহন সার্ভিস ব্যবস্থা। উপজেলার আয়তন ৪৬ হাজার ৯শ’ ২৬ একর ও ১শ’ ৮৯.৯০ বর্গ কি.মি। এর মধ্যে এক ফসলি জমির পরিমাণ ১৫ হাজার ৭০ একর,দো-ফসলি জমির পরিমাণ ১৪ হাজার ৫শ’ ৫৭ একর, তিন ফসলি জমির পরিমাণ ১১হাজার ৮০ একর। জনসংখ্যার মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৫৫ হাজার ৩শ’ ৮৮ জন এবং নারী ১ লাখ ৭১ হাজার ৯শ’ ৮৯জন। এর মধ্যে মুসলিম ধর্মাবলম্বী ৩ লাখ ৪ হাজার ৭ শ’ ৮৪ জন, অন্যান্য ২২ হাজার ৫শ’ ৮৩ জন। জনসংখ্যার ঘনত্ব ১ হাজার ৭শ’ ৩২ জন প্রতি ঘন মিটারে।

১২ টি ইউনিয়নের ১শ’ ৮টি ওয়ার্ডের মধ্যে মোট গ্রাম রয়েছে ১শ’ ৫১টি। একটি প্রথম শ্রেণির পৌরসভার মধ্যে ওয়ার্ড রয়েছে ১২টি। সর্বসাকুল্যে মোট ভোটারের সংখ্যা ১ লাখ ৮৪ হাজার ৭শ’ ২৫ জন। মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ৭শ’ ১৬ জন। এর মধ্যে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন ৮ জন। হাজীগঞ্জ উপজেলায় রাস্তার পরিমাণ রয়েছে ৫শ’ ৬৭.৪৮ কি.মি,। এর মধ্যে কাঁচা রাস্তা রয়েছে ৪শ’৫ কি.মি, পাকা রাস্তা রয়েছে ১শ’ ৪৫.৪৫ কি.মি, সলিং সড়কের পরিমাণ ৭.১৫ কি.মি, রেল লাইন রয়েছে ১৩ কি.মি, সড়ক ও জনপথের সড়ক রয়েছে ২০ কি.মি, নৌ-পথ রয়েছে প্রায় ২০ কি.মি,।

সেচ ব্যবস্থার জন্যে গভীর নলকূপ রয়েছে ১১টি, অগভীর নলকূপ রয়েছে ৭৫টি,যন্ত্রচালিত পাম্পের সংখ্যা রয়েছে ৮শ’ ১৬টি, কৃষি উন্নয়ন সংস্থা রয়েছে ১১টি, সরকারি খাদ্য গুদাম রয়েছে ৬টি, খাদ্যের চাহিদা ৫৩ হাজার ৬শ’ ৩০ মেট্রিক টন। বার্ষিক উৎপাদন ৪৫ হাজার ৮শ’ ৮২ মে. টন। বার্ষিক ঘাটতি রয়েছে ৭ হাজার ৭শ’ ৭৮ মে. টন। পানীয় জলের নলকূপ রয়েছে ৪ হাজার ৩শ’ ২৪টি (জুন-২০১৪ সূত্র)।

৫০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স রয়েছে ১টি, উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র রয়েছে ৩টি, কমিউনিটি ক্লিনিক রয়েছে ২২টি, পরিবার কলাণ কেন্দ্র ১১টি, এমবিবিএস চিকিৎসকের সংখ্যা ২৫ জন, পল্লী চিকিৎসকের সংখ্যা ৬শ’ ৮৪ জন। পুরো উপজেলায় কলেজ রয়েছে ৭টি,প্রাইমারী টিচার্চ ট্রেনিং ইনস্টিটিউট রয়েছে ১টি,উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে ২৬টি, বালিকা বিদ্যালয় রয়েছে ৪টি ও জুনিয়র বিদ্যালয় রয়েছে ১টি,প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে ৯৮ টি,নিবন্ধনকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে ৩৬টি,নিবন্ধনহীন প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে ১টি, কিন্ডারগার্টেন রয়েছে ২৩ টি,মাদ্রাসা রয়েছে ২৩টি, মক্তব রয়েছে ২শ ১১টি,কমিউনিটি স্কুল রয়েছে ২০টি,গণপাঠাগার রয়েছে ১টি, পৌর পাঠাগার রয়েছে ১টি, মসজিদ রয়েছে ৫শ’ ১৬টি,মাজার বা খানকা শরীফ রয়েছে ১৮টি, মন্দির রয়েছে ৬৫টি, উপজেলা ভূমি অফিস ১টি, পৌর ভূমি অফিস ১টি, ইউনিয়ন ভূমি অফিস ৮টি।

নিবন্ধনকৃত স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ৮৭টি, নিবন্ধনকৃত এতিমখানা ৮টি। এ বছর নতুনভাবে যুক্ত হবে আন্তজার্তিকমানের হাজীগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুর এন্ড কলেজ। হাজীগঞ্জ উপজেলায় মাছের বার্ষিক চাহিদা ৫ লাখ ২ হাজার ১শ’ ১০ মে. টন,উৎপাদন হয় ৫ লাখ ৬ হাজার মে.টন। পশু চিকিৎসালয় ১টি ও পশু কৃত্রিম প্রজনন উপকেন্দ্র রয়েছে ৩টি। (ওয়েবসাইড থেকে সংগৃহীত) সম্পাদনায় :আবদুল গনি ।

২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
এজি

এছাড়াও দেখুন

Prince

সাপ্তাহিক হাজীগঞ্জ‘র সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতির ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা

ঈদ মোবারক। আগামি ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৭ জুন ২০২৪ এবং ১০ জিলহজ্জ ১৪৪৫ হিজরি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *