Monday , 17 June 2024
menorial==

গণহত্যা,মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিব চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের কর্মসূচি

২৫ মার্চ গণহত্যা,২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালনে চাঁদপুর জেলা প্রশাসন ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। ইতোমধ্যেই জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ২৫ মার্চ গণহত্যা ও ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস যথাযথভাবে পালনে এক অনুষ্ঠিত সভা চাঁদপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয় ২৯ ফেব্রুয়ারি।

মান্যবর জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান তাঁর কার্যালয়ে ও সভাপতিত্বে বেলা ১১ টায় জেলা পর্যায়ের সকল স্তরের কর্মকর্তা, রাজনৈতিক ব্যাক্তিবর্গ,সাংবাদিক, ব্যবসায়িক, শিক্ষক, বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে প্রস্তুতিমূলক সভা করেন। সভায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে চাঁদপুরে স্বাধীনতার মহান স্থপতি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীরশ্রদ্ধা জানানো হয়।

গণহত্যা , মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস এর গুরুত্ব তাৎপর্য তুলে ধরে চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক বলেন, ‘ ১৯৭১ সালের এদিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহবানে সাড়া দিয়ে ও তাঁর নেতৃত্বে এদেশের জনগণ ঐক্যবদ্ধ ভাবে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন । তিনি ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস ও স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপনের সকলের অংশগ্রহণের আহ্বান জানান।

গণহত্যা,মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপনে চাঁদপুরে ১টি জেলা কমিটি গণহত্যাসহ ২৩ টি উপ-কমিটি গঠন করা হয়।

এ গুলো হলো : জেলা কমিটি ,তোপধবনি উপ-কমিটি,পুষ্পস্তবক অর্পণ উপ-কমিটি, আমন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা কমিটি,কুচকাওয়াজ উপ-কমিটি, জাতীয় পতাকা পর্যবেক্ষণ উপ-কমিটি ,বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা উপ-কমিটি, মিলাদ মাহফিল কমিটি,প্রচার উপ-কমিটি আলোচনা উপ-কমিটি, মিলাদ ও উপাসনা উপ-কমিটি, অর্থ উপ-কমিটি, আলোকসজ্জা ও উপ-কমিটি, ধারাভাষ্যউপ-কমিটি ইতিমধ্যেই এসব কার্যবিবরণীর চিঠি সংশ্লিস্ঠ ব্যক্তিবর্গ ও দপ্তর দপ্তরে আমন্ত্রণ কার্ডসহ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রেরণ করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

কর্মসূচি : ২৫ মার্চ রাতে ১ মিনিট ব্লাক আউট ও গণহত্যায় নিহতের সরণে দোয়া ও মুকিতযুদেও
২৬ মার্চ রাতে সরকারি-বেসরকারি ভবনে আলোকসজ্জা ও একত্রিশ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের শুভ-সূচনা ও মহান মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যুদ্ধে শহীদ ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে অঙ্গীকার পাদদেশে পুস্পস্তবক অর্পণ ও এর পর মুক্তিসৌধ পাদদেশে পুস্পস্তবক অর্পণ, সূর্যোদয়ের সাথে সাথেই সরকারি-বেসরকারি সব ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল ৮ টায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শিশু-কিশোরসহ বিভিন্ন সংস্থার বা সংগঠনসমূহের ডিস-প্লে প্রদর্শন।

চাঁদপুরের স্ব-স্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে। জাতীয় পতাকা ও বিভিন্ন রঙ এর পতাকা দ্বারা শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ও সড়কদ্বীপসমূহ সজ্জিত করা হবে। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ও সংশ্লিষ্ঠ ভবনের আলোকসজ্জা করা হবে।

আবদুল গনি

এছাড়াও দেখুন

Barshik-

চাঁদপুরে বার্ষিক গবেষণা অগ্রগতি পর্যালোচনা শীর্ষক আঞ্চলিক কর্মশালা

বার্ষিক ২০২৩-২৪ গবেষণা অগ্রগতি পর্যালোচনা ও প্রকল্প প্রস্তাবনা ২০২৪-২৫ প্রণয়ন শীর্ষক আঞ্চলিক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *