July 6, 2020, 11:11 am


করোনা ভাইরাস: কাজী মোরশেদ আলম

অনেক বছর আগে জেনেছিলাম যার হবে যক্ষা তার নাই রক্ষা। এ কথাটি আজ বেমানান। আজ যক্ষা নিরাময় ঔষোধের নাই কোনো অভাব। ঔষোধ প্রয়োগ করার ফলে অনায়াসে যক্ষা নিরাময় হয়। আজ এমন একটি ভাইরাসের সাথে পরিচিতি হচ্ছি সেই ভাইরাসের কারণে সারা বিশে^র মানুষ আতঙ্কের মাঝে আছে। যার নামটি হলো করোনা ভাইরাস। এই করোনা ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে সারা বিশে^। মহামারি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সারা বিশে^ এখন অনেক মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢুলে পড়েছে। এই মহামারি ভাইরাস নিরাময় ঔষোধ হয়তো বের হয়ে যাবে। সর্বাত্মক প্রতিরোধে বিশে^র মানুষ মুক্তি পেয়ে যাবে। আমরা করোনা ভাইরাসা থেকে রক্ষা চাই। আমাদের ভালো হতে হবে। অন্যায় নিপীড়ন বন্ধ করে চাল চলন অনেক উন্নত করতে হবে।

সারা বিশে^ করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাবের কারণে শিক্ষা, চাকরী ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ক্ষণিকের জন্য বন্ধ হয়ে গেছে। দেশের মাঝে নেই শান্তি। অশান্তির মাঝে আমরা করছি বিরাজ। স্বস্তিদায়ক ও আনন্দপূর্ণ পরিবেশ থমকে গেছে অকপটে তা করছি স্বীকার। এমন মূহুর্ত্বে মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি ‘হে আল্লাহ আমাদেরকে করোনা ভাইরাস ও বিভিন্ন রোগ থেকে রক্ষা করো। আমরা মন মুগ্ধকর পরিবেশের মাঝে থাকতে চাই। শান্তির মাঝে থাকতে চাই। এবাদত বন্দেগী করে কাটিয়ে দিচ্ছি জীবনটাকে। তুমি আমাদের করোনা মহামারি ভাইরাস থেকে রক্ষা করো। নিকষ অন্ধকার থেকে মুক্ত করো।’ পত্র-পত্রিকা, টিভি ও রেডিওতে আমরা জেনেছি কয়েকজন লোক ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাসে মৃত্যুবরণ করেছে। চিন্তার বিভোরে না থেকে আমরা সচেতনতা বৃদ্ধি করেছি। মাস্ক ব্যবহার করছি। সাবান দিয়ে হাত ধৌত করছি। কাপড় চোপড় রোদে শুকাচ্ছি। মোট কথা নিরাপত্তা বেষ্টনীর মাঝে অবস্থান করছি। আমাদের দেশেও শিক্ষা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আপাতত কিছুদিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। যা হোক আমরা সাবধানতা অবলম্বন করে চলেছি। আল্লাহ আমাদের করবেন রক্ষা এই ভয়াবহ ভাইরাস থেকে। আমরা প্রার্থনা করি দিনে রাতে যেনো এই ভাইরাসের ব্যারিকেড থেকে মুক্তি পাই।

বিশে^র মানুষ আজ আতঙ্কের মধ্যে বসবাস করছে করোনা ভাইরাসের নিপীড়নে। আর্ন্তজাতিক পরিম-লে করোনা ভাইরাস বৃদ্ধি পাচ্ছে দিনের পর দিন। ভয় ভীতি উপেক্ষা করে করোনা ভাইরাসের সাথে লড়েছে। পরিস্কার পচ্ছিনা রাখা হচ্ছে, নিয়ম কানুন মেনে চলা হচ্ছে। আমরা মুসলিম জাতি। ইবাদত বন্দেগীতে আমাদের নাই অবহেলা। যা হোক করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে নিরন্তর চেষ্টায় মগ্ন আছি। নানা নিয়ম কানুন মেনে চলছি। আতঙ্ককে আমরা জয় করেছি। ভয় ভীতি আর থাকবেনা আমাদের মাঝে। আল্লাহ আমাদের করবেন রক্ষা এই ভয়াবহ করোনা ভাইরাস থেকে।

আমাদের দেশে আছে কিছু নাস্তিক মার্কা লোক। পৃথিবীর তাবৎ সত্যকে করছে অশ^ীকার। তবে তাদেরকে সঠিক ভাবে দাওয়াত দিয়ে বুঝাতে হবে। ঐশ^রিক বিধান চালু করে সরল সঠিক সত্যের পথে নিয়ে আসতে হবে। সুন্দর করতে হবে পরিবেশ। আশা করি কেউ কেউ চলে আসবে সরল সঠিক সত্যের পথে। হে আল্লাহ তোমার কাছে প্রার্থনা করি ‘আমরা যেনো মানুষদেরকে সরল সঠিক সত্যের পথে নিয়ে আসতে পারি।’ আমাদের আন্তরিক চেষ্টা থাকবে করোনা থেকে মুক্তি পেতে। আমাদের চেষ্টা হবে না বৃথা। সার্থকতা আমরা লাভ করবোই। আজ যে সকল রাষ্ট্র ইসলামের বিরোধিতা করেছে তারা সাবধান হয়ে গেছে। মসজিদগুলো খুলে দিয়েছে মুসলমানদের জন্য নামাজ আদায়ের জন্য। ধীরে ধীরে এই করোনা থেকে মুক্তি পাচ্ছে। আশা করছি অতি সত্ত্বর এই রোগের চিকিৎসার ঔষোধ পাওয়া যাবে। ভয়ের কোনো কারণ নাই। মনে রাখতে হবে যে জ¦র, গলা ব্যাথা, ম্যাজ ম্যাজ ভাব, শরীর ব্যথা, হাঁচি, কাশি, সর্দি এসব উপসর্গ আছে কিন্তু শ^াস কষ্ট নাই। তাহলে ভয় পাওয়ার লক্ষণ নাই। ঘরে বসে এসবের জন্য চিকিৎসা গ্রহণ করুণ। দেখা যাবে আস্তে আস্তে এসব উপসর্গ থেকে রক্ষা পেয়ে যাবেন।

এই প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস গত ডিসেম্বরে চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়েছে সারা বিশে^। বাংলাদেশে কয়েজনের মৃত্যুর খবর শুনা গেছে। আক্রান্ত হয়েছে অর্ধ শতাধিক। করোনা ভাইরাস চীনে তৈরি করা হয়েছে বলে কেউ কেউ ধারণা করেন। একদল বিজ্ঞানী বিবৃতিতে বলেছেন ‘‘জীবজন্তÍর শরীর থেকে এই করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে’’। দিন দিন মানুষের মাঝে উৎকণ্ঠা বেড়েই চলেছে। না কোনো উৎকণ্ঠা করা যাবে না। এই মহামারি থেকে রক্ষা পেতে সাহসের সাথে কাজ চালিয়ে যেতে হবে। জ¦র, ঠা-া কাশি হতেই পারে। এর জন্য খামাকা বাজে চিন্তা না করে ঘরে বসেই চিকিৎসা নিন। মার্চ ও এপ্রিল মাসে সর্দি কাশি হতেই পারে। ভয়কে জয় করে ঘরে বসেই প্রাথমিক চিকিৎসা নিন। সরকার করোনা ভাইরাস দমনে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য আর্থিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ইতিমধ্যে নির্দেশ দিয়েছে করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা কল্পে ৫০০ জন চিকিৎসকের তালিকা প্রস্তত করে রেখেছে। রাজনৈতিক ও ধর্মীয় সমাবেশ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কয়েক মাসের মধ্যে এই মহামারি ভাইরাসটির মৃত্যু ঘটবে। যাহোক আমাদের ইবাদত বন্দেগী বেশি বেশি করা চাই। জিকির করতে থাকুন সর্বদা। আল্লাহ আমাদের মারাত্মক মহামারি এই করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা করবেন।

কাজী মোরশেদ আলম এম. এ. বি. এড (ডি.এইচ.এম.এস)
প্রধান সম্পাদক- সাপ্তাহিক হাজীগঞ্জ ও হৃদয়ে চাঁদপুর।
মোরশেদ মিডিয়া সাহিত্য গবেষণা কেন্দ্র
গ্রাম-েেমাহনপুর, পো. মোহনপুর বাজার, থানা- দেবিদ্বার, জেলা-কুমিল্লা।
সাবেক সভাপতি, হাজীগঞ্জ উপজেলা সাংবাদিক কল্যাণ সমিতি।
প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, হাজীগঞ্জ প্রেসক্লাব, হাজীগঞ্জ, চাঁদপুর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


সংবাদ পড়তে লাইক দিন ফেসবুক পেজে